ভারতে করোনা-সম্পর্কিত মৃত্যু প্রায় ৪৯ লক্ষ! দাবি সমীক্ষা রিপোর্টে

COVID-DETH.jpg

সৎকার চলছে কোভিডে মৃতদের দেহ — ফাইল চিত্র

Onlooker desk: দেশে ফের বাড়ল দৈনিক সংক্রমণের সংখ্যা। বুধবার গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে সংক্রামিত হয়েছেন ৪২ হাজার ১৫ জন। মঙ্গলবার যা ছিল ৩০ হাজারের আশপাশে। সেখান থেকে এক দিনে লাফিয়ে বাড়ল সংক্রামিতর সংখ্যা।
পাশাপাশি মহারাষ্ট্র মৃত্যুর তথ্য সংশোধন করেছে। যার জেরে একদিনে ৩,৯৯৮ জনের মৃত্যুর খবর মিলেছে। গত ১২ জুনের পরে যা সর্বাধিক। এমনিতে গোটা দেশে করোনায় ৪৮৯ জনের মৃত্যু হয়েছে গত ২৪ ঘণ্টায়। আর মহারাষ্ট্র ১৪তম বারমৃতের সংখ্যা সংশোধন করে ৩,৫০৯ জনের মৃত্যুর কথা জানিয়েছে। যে কারণে একদিনে মৃত্যু ফের হাজার চারেকের কাছাকাছি পৌঁছে গিয়েছে।
একটি সাম্প্রতিক রিপোর্টে জানানো হয়েছে, ভারতের এই সংশোধিত মৃত্যুর সংখ্যা প্রায় ৪৯ লক্ষ। অর্থাৎ, করোনায় মৃত্যু কম করে দেখানো হচ্ছে বলে যে অভিযোগ উঠেছিল, কার্যত তাতেই সিলমোহর পড়ছে।
সমীক্ষাটি চালিয়েছে ওয়াশিংটনের সেন্টার ফল গ্লোবাল ডেভেলপমেন্ট। প্রাক্তন চিফ ইকনমিক অ্যাডভাইজার অরবিন্দ সুব্রহ্মণ্যম এই রিপোর্টের সহ-লেখক। এমনিতেই ৪ লক্ষ ১৪ হাজারের বেশি মৃত্যুর পরিসংখ্যান ভারতে। করোনায় মৃত্যুর হিসাবে বিশ্বে তৃতীয় স্থানে আছে দেশ। আগে রয়েছে কেবল আমেরিকা এবং ব্রাজিল। কিন্তু এই রিপোর্টের পরদেশজুড়ে মৃত্যু-অডিটের জন্য বিশেষজ্ঞদের চাপ বাড়ছে।
দ্বিতীয় ঢেউয়ে দেশে দাপিয়ে বেড়িয়েছে ডেল্টা ভ্যারিয়ান্ট। এপ্রিল-মে মাসে করোনার সেকেন্ড ওয়েভে স্বাস্থ্য পরিকাঠামো কার্যত ভেঙে পড়ে। সরকারি হিসাবেই কেবল মে মাসে মারা যান ১ লক্ষ ৭০ হাজার মানুষ। অতিমারীকালে ৩৪ থেকে ৪৯ লক্ষ মৃত্যুর হিসাব নেই বলে ওই সমীক্ষা রিপোর্টে জানানো হয়েছে। সমীক্ষকরা লিখেছেন — দুঃখজনক ভাবে এটা পরিষ্কার যে একশো দু’শো বা কয়েক হাজার নয়। এই গরমিল কয়েক মিলিয়নে।’ কিন্তু এর সব মৃত্যুই করোনায়, এমন কথা বলা হচ্ছে না রিপোর্টে। ধরা হয়েছে এর সঙ্গে সম্পর্কিত মৃত্যুকেও।
এ বিষয়ে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের প্রতিক্রিয়া পাওয়ার চেষ্টা করলেও তা মেলেনি। কোনও কোনও গবেষকের মতে, এই হিসাব-বহির্ভূত মৃত্যুই কোভিড-১৯ এর প্রকৃত পরিস্থিতি বুঝতে সহায়ক।
বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান বিজ্ঞানী সৌম্যা স্বামীনাথন টুইটারে লেখেন — প্রতিটি দেশেরই হিসাব-বহির্ভূত মৃত্যুর রেকর্ড রাখা দরকার। ভবিষ্যতের সঙ্কট মোকাবিলা ও মৃত্যু ঠেকাতে প্রস্তুত হতে সাহায করবে এই পরিসংখ্যান।
এর আগে করোনা-সম্পর্কিত মৃত্যু নিয়ে একটি রিপোর্টের প্রেক্ষিতে নিউ ইয়র্ক টাইমসের সঙ্গে দ্বন্দ্ব বাধে কেন্দ্রীয় সরকারের। সেখানে বলা হয়েছিল, সবচেয়ে কম করে হলেও ভারতে ৬ লক্ষ মানুষ মারা গিয়েছেন। আর সবকিছু ধরলে সংখ্যাটা এর কয়েক গুণ বেশি। প্রত্যন্ত এলাকাগুলিতে মৃত্যুর সঠিক হিসাব রাখার যথাযথ পরিকাঠামো নেই। তার জেরেই পরিসংখ্যানে এই গরমিল বলে স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের দাবি।
পাশাপাশি টিকাকরণ নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকার যথেষ্ট সমালোচিত হয়েছে। এ পর্যন্ত টিকা পাওয়ার উপযুক্ত জনসংখ্যার মাত্র ৮ শতাংশ ভ্যাকসিন পেয়েছেন।

Theonlooker24x7.com সব খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে লাইক করুন ফেসবুক পেজ  ফলো করুন টুইটার

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

scroll to top