কৃষি আইন বাতিলের দাবিতে আজ থেকে যন্তর মন্তরে কিষান সংসদ আন্দোলনকারীদের

WhatsApp-Image-2021-07-22-at-10.57.57-AM.jpeg

কিষান সংসদের আগে কড়া পুলিশি পাহারা দিল্লিতে

Onlooker desk: কৃষি আইন বাতিলের দাবিতে গত নভেম্বর থেকে আন্দোলন চালাচ্ছেন কৃষকরা। আজ, বৃহস্পতিবার দিল্লির যন্তর মন্তরে কিষান সংসদ অভিযানের সূচনা করছেন আন্দোলনকারীরা। সংসদের অধিবেশন চলাকালীন প্রতিদিন ২০০ জনের দলে ভাগ হয়ে এই আন্দোলন চলবে।
সকাল ১১টা থেকে বিকেল পাঁচটা পর্যন্ত যন্তর মন্তরে কিষান সংসদের অনুমতি দিয়েছে দিল্লি সরকার ও পুলিশ। এ জন্য রাজ্যের বিপর্যয় মোকাবিলা আইনে কিছু পরিবর্তন আনা হয়েছে। তবে আন্দোলন চললেও কোভিড-বিধি কঠোর ভাবে মেনে চলতে হবে। নিরাপত্তায় মুড়ে ফেলে যন্তর মন্তরকে কার্যত দুর্গে পরিণত করা হয়েছে।
সিংঘু সীমানা থেকে প্রতিদিন দু’শো জন কৃষক হাজির রওনা হবেন আন্দোলনের উদ্দেশ্যে। পুলিশই তাঁদর এসকর্ট করে যন্তর মন্তর পর্যন্ত নিয়ে যাবে। আন্দোলনকারীদের মধ্যে কেরালা, কর্নাটকের কৃষকরাও রয়েছেন বলে নেতাদের দাবি।
কী হবে এই কিষান সংসদে? একেবারে সংসদ অধিবেশনের কায়দায় তা পরিচালিত হবে বলে খবর। একজন স্পিকার, একজন ডেপুটি স্পিকার থেকে শুরু করে চায়ের বিরতি, সবই থাকবে। রাজনৈতিক আন্দোলনকারী যোগেন্দ্র যাদব বলেন, ‘সংসদ কী ভাবে চালানো উটিত, সেটা আমরা দেখিয়ে দেব।’
প্রত্যেক আন্দোলনকারীকে পরিচয়পত্র বহন করতে হবে। সময় শেষ হয়ে গেলে তাঁদের পুলিশি নিরাপত্তাতেই ফিরিয়ে দেওয়া হবে সিংঘুতে।
আন্দোলনকারী কৃষকরা জানিয়েছেন, তাঁদের বাদা দেওয়া হলে গ্রেপ্তারি বরণ করবেন। কৃষক সংগঠনগুলি সদস্যদের বলে রেখেছে, ছ’মাস পর্যন্ত হাজতবাসের জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে।
আন্দোলনের কারণে বাড়ানো হয়েছে পুলিশি নজরদারি। যে কোনও ধরনের অনভিপ্রেত ঘটনা এড়াতে পর্যাপ্ত বন্দোবস্ত করা হয়েছে। গত ২৬ জানুয়ারির ঘটনার পুনরাবৃত্তি যাতে না-হয়, নজর রাখা হচ্ছে সে দিকে।
দিল্লি মেট্রোকেও বাড়তি নজরদারির কথা বলেছে পুলিশ। মূলত সাতটি স্টেশনে এই নজরদারির কথা বলা হয়েছে। প্রয়োজনে সেগুলি বন্ধ করে দেওয়ার সম্ভাবনাওউড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না।
স্পেশ্যাল ইউনিটের পুলিশকর্মীদের সঙ্গে ইউনিফর্ম রাখতে বলা হয়েছে। যাঁরা ছুটিতে আছেন, প্রয়োজনে তাঁদের ডেকে পাঠানোর এক ঘণ্টার মধ্যে রিপোর্ট করতে হবে। এ ছাড়া, আন্দোলনের জেরে দিল্লির বিভিন্ন রাস্তায় যান চলাচল ব্যাহত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে বলে পুলিশ জানিয়েছে। টিকরি দিয়ে যাতে কোনও দুষ্কৃতী ঢুকে পড়ে অশান্তি তৈরি করতে না-পারে, সে জন্যও ব্যবস্থা করা হয়েছে।
ডিসিপি (আউটার ডিস্ট্রিক্ট) পরবিন্দর সিং বলেন, ‘টিকরি দিয়ে যাতে কোনও দুষ্কৃতী ঢুকে পড়তে না পারে, সে জন্য আগাম ব্যবস্থা করেছি আমরা।’

Theonlooker24x7.com সব খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে লাইক করুন ফেসবুক পেজ  ফলো করুন টুইটার

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top