টিকা নেওয়ার কারণে মৃত্যু হয়েছে, স্বীকার কেন্দ্রীয় রিপোর্টে

CORONA-VACCINE.jpg

 Onlooker desk: টিকার কারণে মৃত্যু! দেশে প্রথম এমন ঘটনার কথা স্বীকরা করল কেন্দ্রীয় সরকার। একটি রিপোর্টে টিকার জেরে মৃত্যুর কথা মেনে নেওয়া হয়েছে।
এ বছর জানুয়ারি মাসে টিকাকরণ শুরু করে কেন্দ্র। তারপরে নানা পার্শ্ব প্রতিক্রিয়ার কথা জানা গিয়েছে। কিন্তু টিকার (vaccine) কারণে মৃত্যুতে সিলমোহর পড়েনি। টিকার  কারণে প্রবল অসুস্থতার ৩১টি কেস নিয়ে একটি সমীক্ষা হয়। তার রিপোর্টেই টিকার কারণে মৃত্যুর কথা উঠে আসে।
গত ৩১ মার্চ ৬৮ বছরের ওই ব্যক্তি মারা যান। টিকার (vaccine) দু’টি ডোজই নিয়েছিলেন তিনি। তাঁর মৃত্যুকে ভ্যাকসিনের উপাদান থেকে প্রতিক্রিয়ায় মৃত্যু বলে চিহ্নিত করা  হয়েছে। নির্দিষ্ট ভাবে এটাই দেশে প্রথম টিকার কারণে মৃত্যু।
ওই রিপোর্ট তৈরি করেছে ন্যাশনাল অ্যাডভার্স ইভেন্টস ফলোয়িং  ইমিউনাইজেশন (এইএফআই) কমিটি। এই কমিটি স্বাস্থ্য মন্ত্রকের অধীন। যে ৩১টি কেস নিয়ে সমীক্ষা হয়, তার মধ্যে ২৮টি ক্ষেত্রেই অসুস্থ ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে।
কমিটির উপদেষ্টা এন কে অরোরা টিকার (vaccine) কারণে  মৃত্যুর কথা স্বীকার করেছেন। তিনি বলেন, ‘এ ক্ষেত্রে ভ্যাকসিনের অ্যানাফিল্যাক্সিস প্রতিক্রিয়া হয়। কিন্তু মোট টিকা প্রাপকের নিরিখে অল্পসংখ্যকেরই বিরূপ প্রতিক্রিয়া ধরা পড়েছে।’
অ্যানাফিল্যাক্সিস প্রতিক্রিয়া কী? তা হলো, টিকা (vaccine) নেওয়ার আধ ঘণ্টা পরে মারাত্মক কোনও প্রতিক্রিয়া হওয়া। ২৮ জনের মধ্যে তিন  জনের শরীরে তা দেখা যায়। দু’জন হাসপাতালে চিকিৎসার পর বাড়ি ফিরে গিয়েছেন। একজনের মৃত্যু হয়েছে।
বাকিগুলির মধ্যে ১৮টি কেসের সঙ্গে টিকার (vaccine) যোগ নেই। সেগুলিকে ‘কোইনসিডেন্টাল’ হিসাবে চিহ্নিত করা হচ্ছে। টিকার পরে দু’জনকে হাসপাতালে ভর্তি  করতে হয়। সাতটি ক্ষেত্রে মৃত্যুর সঙ্গে টিকার কোনও যোগ পাওয়া যায়নি। আর দু’ক্ষেত্রে যথেষ্ট তথ্য মেলেনি।
তবে স্বাস্থ্য মন্ত্রক বিষয়টিকে খুব বড় করে দেখছে না।  তাদের বক্তব্য, ‘সামগ্রিক ভাবে টিকাকরণের উপকার অনেক বেশি। তার তুলনায় এই ক্ষতি সামান্য।’
এগুলির সঙ্গে টিকার (vaccine) সরাসরি কোনও যোগাযোগ নেই বলে জানিয়েছে মন্ত্রক। মন্ত্রকের ব্যাখ্যা — পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়া হিসাবে কয়েকটি হসপিটালাইডেশন এবং একটি মৃত্যু হয়েছে। সবই যে টিকারই জন্য, সেটা সরাসরি প্রমাণিত নয়। এ ব্যাপারে এপ্রিলের প্রথম সপ্তাহের  ডেটাও তুলে ধরা হয়েছে। প্রতি ১০ লক্ষ ডোজে ২.৭টি মৃত্যু এবং ৪.৮টি হসপিটালাইজেশন হয়েছে।
দেশে এ পর্যন্ত টিকার (vaccine) ২৫ কোটি ডোজ দেওয়া হয়েছে। এ বছরের মধ্যে ১০৮ কোটি মানুষের টিকাকরণের লক্ষ্যমাত্রা নেওয়া হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

scroll to top