প্রবল হট্টগোল বিজেপি বিধায়কদের, পাঁচ মিনিটে ভাষণ শেষ করে বেরিয়ে গেলেন রাজ্যপাল

WhatsApp-Image-2021-07-02-at-3.15.03-PM.jpeg

কলকাতা: রাজ্য সরকারের তৈরি করে দেওয়া খসড়া কি তিনি পড়বেন?
আজ, শুক্রবার রাজ্য বিধানসভায় বাজেট অধিবেশন শুরু হলো। শুরুতেই ভাষণ দেওয়ার কথা ছিল রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়ের।
কিন্তু বিজেপি ও তৃণমূল বিধায়করা প্রবল হট্টগোল শুরু করেন গোড়াতেই। মিনিট পাঁচেকের মধ্যে ভাষণ শেষ করে বেরিয়ে যান রাজ্যপাল। বিজেপি বিধায়কদের পাল্টা স্লোগান, গোলমাল শুরু করে তৃণমূলও। বিধানসভায় এমন ঘটনা কার্যত নজিরবিহীন।
মে মাসে ভোটে জিতে তৃতীয় বার সরকার গঠন করেছে তৃণমূ কংগ্রেস। মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের শপথের দিন থেকে রাজ্যপালের সঙ্গে সংঘাত কার্যত চরমে। কখনও নির্বাচন পরবর্তী হিংসা, কখনও ইয়াসে প্রধানমন্ত্রীর পর্যালোচনা বৈঠকে মমতার অনুপস্থিতি। আক্রমণ শানিয়েই চলেছেন রাজ্যপাল। পাল্টা দিতে ছাড়ছে না তৃণমূল, রাজ্য সরকারও।
এরই মধ্যে শুক্রবার বিধানসভার বাজেট অধিবেশন শুরু হওয়ার কথা ছিল। এই বাজেট অধিবেশনে রাজ্যপালের ভাষণ নিয়েও দু’পক্ষের কোন্দল শুরু হয়। রাজ্যের তৈরি করে দেওয়া খসড়া ভাষণ নিয়ে আপত্তি জানান ধনখড়। সরাসরি মমতাকে ডেকে পাঠান।
তার মধ্যে বৃহস্পতিবারই ভুয়ো টিকাকরণ কাণ্ডে রাজ্যপালের নাম জড়িয়েছে তৃণমূল। এই ঘটনায় ধৃত দেবাঞ্জন দেবের নিরাপত্তারক্ষীর সঙ্গে ধনখড়ের ছবি তুলে ধরা হয়। সাংসদ সুখেন্দুশেখর রায় বলেন, ‘এই ছবি সত্যি হলে তা রাজ্য তথা দেশের জন্য বিপজ্জনক।’
চুপ থাকেনি বিজেপি। তারা রাজ্যপালের হয়ে আসরে নামে। মুখ খোলেন দলের রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ।
সব মিলিয়ে আবহ যথেষ্টই উত্তপ্ত ছিল। এর মধ্যে আজ, শুক্রবার দুপুর দুটো নাগাদ বিধানসভায় পৌঁছন ধনখড়। মমতা এবং বিধানসভার স্পিকার বিমান বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁকে স্বাগত জানান। তিনজনে বি আর আম্বেদকরের মূর্তিতে মাল্যদান করেন।
এরপর প্রথা মেনেই রাজ্যপালের ভাষণ দিয়ে বিধানসভার কার্যপদ্ধতির সূচনা হয়। তা শুরু হওয়ার অব্যবহিত পরেই ওয়েলে নেমে ব্যাপক হৈ-হট্টগোল শুরু করেন বিজেপি বিধায়করা। রাজ্যে ভোট পরবর্তী হিংসায় আক্রান্তদের ছবি নিয়ে চলে বিক্ষোভ। উপস্থিত ছিলেন বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারীও।
পাল্টা চিৎকার জুড়ে দেন তৃণমূল বিধায়করাও। ‘ধনখড় হটাও’, ‘জয় বাংলা’ স্লোগান উঠতে থাকে।
এই পরিস্থিতিতে মিনিট পাঁচেক ভাষণ দেন রাজ্যপাল। তারপরে এক প্রকার বাধ্য হয়েই তা থামিয়ে বেরিয়ে যান।
মুখ্যমন্ত্রী ও স্পিকার অবশ্য তাঁকে আটকানোর চেষ্টা করেন। কিন্তু সেই আবেদন গ্রাহ্য না করে বিধানসভা ছাড়েন ধনখড়।
রাজ্যপালের উদ্বোধনী ভাষণে এমন অরাজকতার নজির বিরল। বিজেপি পরিকল্পনা করেই এমন কাণ্ড ঘটিয়েছে বলে অনেকে মনে করছেন। কারণ, প্রথা মেনে রাজ্যের তৈরি খসড়াই পড়ার কথা রাজ্যপালের। এ দিকে তা নিয়েই চলছে তরজা। তাই গোলমাল বাধিয়ে ভাষণ ভণ্ডুলের পথ ধরেছে বিজেপি। এমন অভিযোগ তুলছেন অনেকে।
অধিবেশন ফের সাড়ে তিনটেয় শুরু হওয়ার কথা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

scroll to top