দেশজুড়ে রান্নার গ্যাসের সিলিন্ডারের দাম বাড়ল ২৫ টাকা। কোন শহরে কত হলো দাম?

WhatsApp-Image-2021-07-01-at-1.12.01-PM.jpeg

Onlooker desk: পেট্রল ডিজেল তো আছেই। সেই সঙ্গে এ বার দাম বাড়ল রান্নার গ্যাসের।
আজ, বৃহস্পতিবার থেকে রান্নার গ্যাসের ১৪.২ কেজির প্রতিটি সিলিন্ডারের দাম বেড়েছে ২৫ টাকা ৫০ পয়সা। যার জেরে দিল্লি এবং মুম্বইয়ে রান্নার গ্যাসের এক একটি সিলিন্ডারের দাম হলো ৮৩৪.৫০ টাকা। সেই সিলিন্ডারেরই দাম চেন্নাইয়ে ৮৫০.৫০ টাকা। কলকাতায় দাম এমনিতেই ৮৩৫ টাকা ছিল। মূল্য বৃদ্ধির পরেও তা হলো ৮৬১ টাকা।
গত ছ’মাসে রান্নার গ্যাসের এক একটি সিলিন্ডারের দাম বেড়েছে মোট ১৪০ টাকা।
দেশে জ্বালানির সবচেয়ে বড় পাইকারী বিক্রেতা ইন্ডিয়ান অয়েল। তাদের রান্নার গ্যাসের ব্র্যান্ডের নাম ইন্ডেন। এ ছাড়া কয়েকটি সংস্থা রান্নার গ্যাসের সংযোগ দিলেও ইন্ডেনের গ্রাহকই সবচেয়ে বেশি।
ঝলকে কয়েকটি শহরে তিন মাসের সিলিন্ডারের দামের তুল্যমূল্য বিচার —
মুম্বই ও দিল্লিতে আজ, ১ জুলাই থেকে একটি সিলিন্ডারের দাম হলো ৮৩৪.৫০ টাকা। ১ জুন ও ১ মে তা ছিল ৮০৯ টাকা। চেন্নাইয়ে আজ, ১ জুলাই থকে এক একটি সিলিন্ডারের দাম হলো ৮৫০.৫০ টাকা। ১ জুন ও ১ মে তা ছিল ৮২৫ টাকা। কলকাতায় আজ ১ জুলাই থেকে দাম হলো ৮৬১ টাকা। ১ জুন ও ১ মে দাম ছিল ৮৩৫ টাকা।
১৯ কেজির কমার্শিয়াল সিলিন্ডারের দাম বাড়ছে ৭৬ টাকা করে।
এমনিতেই পেট্রল ডিজেলের দামে সাধারণ মানুষের নাজেহাল অবস্থা। মুম্বইয়ে পেট্রলের দাম আগেই ১০০ টাকা ছাড়িয়েছে। অন্য অনেক মেট্রো শহরে তা ১০০-র থেকে সামান্য দূরে। বেঙ্গালুরুতে পেট্রল ১০০ পেরিয়ে গিয়েছে। ডিজেলও টক্কর দিচ্ছে সমান তালে।
দাম কমানোর ব্যাপারে কেন্দ্রীয় সরকারের বিশেষ উদ্যোগ চোখে পড়ছে না বলে বিরোধীদের অভিযোগ। কিছু রাজ্য কর ছাড় দিয়ে দাম নিয়ন্ত্রণে রাখার চেষ্টা করেছিল। কিন্তু মোদী সরকার পেট্রোপণ্যের মূল্যবৃদ্ধিতেও পূর্বতন সরকারদের দুষে চলছে।
এতে মানুষের মধ্যে ক্ষোভ আরও বাড়ছে। সম্প্রতি এক ব্যক্তি এ নিয়ে কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর বিরুদ্ধে মুফ্ফরনগরে মামলাও দায়ের করেছেন। তাঁর প্রশ্ন, আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দাম এমন লাগামছাড়া নয়। তা হলে ভারতের বাজারে এই অবস্থা কেন?
ইতিমধ্যে অ্যাভিয়েশন টারবাইন ফুয়েলের দামও প্রতি কেএলে ২,৩৫৪ টাকা বেড়েছে।
সরকার প্রতি বছর প্রতিটি পরিবারকে ১২টি ১৪.২ কিলোর সিলিন্ডার ভর্তুকিতে দেয়। তার অতিরিক্ত সিলিন্ডার লাগলে ভর্তুকি ছাড়া কিনতে হবে। এই ১২টি সিলিন্ডারের ভর্তুকির অঙ্ক প্রতি মাসে স্থির হয়। তা মূলত বিদেশি মুদ্রার বিনিময় হার, অপরিশোধিত তেলের দাম ইত্যাদির উপরে নির্ভর করে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

scroll to top