ওডিশা থেকে বাংলায় এসে ছিনতাই, পুলিশের জালে দুই দুষ্কৃতী

Jamalpur.jpg

বর্ধমান: এক যুবকের মোটরবাইকের টুল বক্স ভেঙে মোটা টাকা ছিনতাই করে নিয়ে পালানোর সময়ে পুলিশের হাতে ধরা পড়লো ভিন রাজ্যের দুই দুষ্কৃতী। ধৃতদের নাম আউল সোম ও রানা আউল প্রধান। প্রথম জনের বাড়ি ওড়িশার গঞ্জাম জেলার আসকা থানার ডোমকুনি সাহাপুর এলাকায়। অপর জন ওডিশার জয়পুর জেলার কোরাই থানার পূর্বকোট এলাকার বাসিন্দা। মঙ্গলবার দুপুরে পূর্ব বর্ধমানের জামালপুর (Jamalpur) থানার পুলিশের নাকা চেকিংয়ে ধরা পড়ে যায় ওডিশার এই দুই দুষ্কৃতী। তাদের কাছ থেকেই উদ্ধার হয় ছিনতাই হওয়া টাকা। থানায় পুলিশের ম্যারাথন জিজ্ঞাসাবাদে ধৃতদের সম্পর্কে উঠে আসে চাঞ্চল্যকর তথ্য। যা জেনে কার্যত স্তম্ভিত জেলা পুলিশের কর্তারা।
পুলিশ জানিয়েছে, খণ্ডঘোষের কৈয়ড় গ্রামের বাসিন্দা শৈলেন মুখোপাধ্যায় এদিন দুপুরে রায়নার (Raina) সেহারাবাজারের একটি রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্ক থেকে টাকা তুলে মোটরবাইকের টুল বক্সে রাখেন। এর পর তিনি ব্যাঙ্ক থেকে কিছুটা দূরে একটি দোকানের সামনে বাইকটি দাঁড় করিয়ে কিছু জিনিসপত্র কিনতে ঢোকেন। ওই সময়ে মুহূর্তের মধ্যে শৈলেনের বাইকের টুলবক্স ভেঙে টাকা নিয়ে নেয় দুই দুষ্কৃতী। নীল রঙের বাইকে চেপে দ্রুত পালিয়ে যায় তারা। এই ঘটনা দেখার পরেই ওই দোকানের সামনে থাকা লোকজন চিৎকার চেঁচামেচি শুরু করেন। তখনই শৈলেন দোকান থেকে বাইরে বেরিয়ে এসে দেখেন, তাঁর মোটর বাইকের টুলবক্স ভাঙা। এরই মধ্যে সেখানকার কয়েক জন দুষ্কৃতীদের পিছু ধাওয়া করে।
এদিকে ঘটনার কথা রায়না (Raina) থানায় পৌঁছতেই নড়েচড়ে বসে পুলিশ। এসডিপিও (বর্ধমান দক্ষিণ) আমিনুল ইসলাম খান বলেন, ‘খবর পাওয়া মাত্র বিভিন্ন থানাকে সতর্ক করে দেওয়া হয়। সেহারাবাজার থেকে জামালপুর যাওয়ার পথে রায়না (Raina) ও জামালপুরে (Jamalpur) বিভিন্ন পয়েন্টে পুলিশের নাকা শুরু হয়। নীল বাইকে চেপে থাকা দুই দুষ্কৃতী সেহারাবাজার থেকে পালিয়ে যেতে সক্ষম হলেও জামালপুরের (Jamalpur) কারালাঘাট এলাকায় তারা ধরা পড়ে যায়। ছিনতাই হওয়া টাকাও তাদের কাছ থেকে উদ্ধার হয়েছে।’ পুলিশ ওই দুই দুষ্কৃতীকে গ্রেপ্তার করার পাশাপাশি তাদের নম্বরবিহীন নতুন মোটরবাইকটি বাজেয়াপ্ত করেছে।
শৈলেন বলেন, ‘এক মিনিটেরও কম সময়ের মধ্যে অপারেশন চালিয়ে দুষ্কৃতীরা বাইকের টুলবক্স ভেঙে ৭৫ হাজার টাকা নিয়ে পালিয়ে যায়। পুলিশ দ্রুত তৎপর হওয়াতেই দুষ্কৃতীরা টাকা-সহ ধরা পড়েছে।’
ধৃতদের জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ জানতে পেরেছে, ধৃতরা মূলত ওডিশা, বিহারের পাশাপাশি বাংলায় অপরাধ চক্র চালায়। এই কাজের জন্য ওডিশার ভাষার পাশাপাশি হিন্দি ও বাংলায় সাবলীল ভাবে কথা বলা শিখেছে। ধৃতদের বিরুদ্ধে পূর্ব মেদিনীপুরের দু’টি থানায় জাল নোট পাচারে অভিযোগ রয়েছে। তারা কিছুদিন আগে গঞ্জাম এলাকায় ২ লক্ষ টাকা ছিনতাই করে পূর্ব মেদিনীপুরে চলে আসে। সেখানে ১ লক্ষ ২০ হাজার টাকা দিয়ে এই নীল মোটরবাইকটি তারা কেনে। সেই মোটরবাইক নিয়ে কলকাতায় বেশ কিছু দিন ঘুরে তারা পূর্ব বর্ধমান জেলায় এসে বিভিন্ন জায়গায় ঘুরে রেইকি করে যাচ্ছিল। কিছুদিন আগে বর্ধমান শহরের বাদামতলায় এক চাল ব্যবসায়ীর টাকা ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটে। পুলিশ এখনও সেই ঘটনার কিনারা করতে পারেনি। শহর বর্ধমানে ওই চাল ব্যবসায়ীর টাকা ছিনতাইয়ের ঘটনায় জামালপুরে (Jamalpur) ধৃত দুষ্কৃতীরা জড়িত আছে কি না, তাও পুলিশ খতিয়ে দেখছে।

Theonlooker24x7.com সব খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে লাইক করুন ফেসবুক পেজ  ফলো করুন টুইটার

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top