পরকীয়া নিয়ে গ্রামে সালিশি সভা, নিদান মেনে নিতে না পেরে আত্মঘাতী যুগলে

MANGOLKOTE.jpg

কান্নায় ভেঙে পড়েছেন পরিবারের লোকজন

বর্ধমান: বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্কের কথা জানাজানি হতে দুই পরিবারের মধ্যে অশান্তি চরমে ওঠে। তা নিয়ে সালিশি সভা বসে গ্রামে। সেখানে ঠিক হয়, বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্ক রাখা যাবে না। এই নিদান মেনে নিতে না পেরে আত্মহত্যা করলেন এক গৃহবধূ ও তাঁর প্রেমিক। পূর্ব বর্ধমানের মঙ্গলকোট থানার বনকাপাসি গ্রামের ঘটনা।

মৃতদের নাম প্রদীপ মাজি (২৮) ও রিয়া মাজি (২৫)। মঙ্গলকোট থানার পুলিশ শনিবার সকালে বাড়ি থেকেই তাঁদের দেহ উদ্ধার করে। এদিনই মৃতদেহ দু’টি ময়নাতদন্তে পাঠানো হয়। অস্বাভাবিক মৃত্যুর মামলা রুজু করে ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

রিয়ার শ্বশুরবাড়ি বনকাপাসি গ্রামের দক্ষিণ পাড়ায়। তাঁর স্বামী পেশায় টোটোচালক। তাঁদের ৪ বছরের একটি কন্যা সন্তান রয়েছে। একই পাড়ার বাসিন্দা পেশায় ট্র্যাক্টর চালক প্রদীপ। স্থানীয় বাসিন্দা জানান, প্রদীপও বিবাহিত। তবে স্ত্রীর সঙ্গে বিচ্ছেদের পর রিয়ার সঙ্গে তাঁর সম্পর্ক গড়ে ওঠে। মাস দেড়েক আগে এই সম্পর্কের কথা দুই পরিবারের লোকজন জানতে পারেন। তা নিয়ে দুই পরিবারের মধ্যে অশান্তিও চরমে ওঠে। শেষমেশ অশান্তি মেটাতে সালিশি সভা বসে গ্রামে। সেখানে সিদ্ধান্ত হয়, পরিবারের স্বার্থে রিয়া ও প্রদীপ  কেউ কারও সঙ্গে সম্পর্ক রাখতে পারবেন না। প্রতিবেশীদের বক্তব্য, এই সিদ্ধান্তের পর মানসিক ভাবে ভেঙে পড়েন দু’জনেই। এদিন সকালে শ্বশুরবাড়ির একটি ঘর থেকে উদ্ধার হয় রিয়ার ঝুলন্ত দেহ। একই দিনে নিজের বাড়ির শোওয়ার ঘরেই গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মঘাতী হন প্রদীপ। সম্পর্কে বাধা পেয়েই তাঁরা আত্মঘাতী হয়েছেন বলে মনে করছেন স্থানীয় বাসিন্দারা। দুই পরিবার যদিও এই ঘটনায় কাউকে দায়ী করে এদিন সন্ধ্যা পর্যন্ত থানায় কোনও অভিযোগ দায়ের করেনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

scroll to top