বাবার মৃত্যুর পরেই বহুতল হাসপাতাল থেকে ঝাঁপ দিয়ে আত্মঘাতী ছেলে

Khandaghosh-suicide.jpg

বর্ধমান: ব্রেন স্ট্রোকে আক্রান্ত হয়েছিলেন বাবা। কয়েকটি হাসপাতাল ঘুরে তাঁকে বাঁচানো যায়নি। একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাঁর মৃত্যু হয়। এ ভাবে বাবার মৃত্যুতে ভেঙে পড়েন ছেলে। বেশ কিছুক্ষণ পর ওই হাসপাতালেরই পাঁচতলা থেকে ঝাঁপ দিয়ে আত্মঘাতী (suicide) হন তিনি।
ব্রেন স্ট্রোকে মৃত কার্তিক রুইদাস (৫০) পূর্ব বর্ধমানের খণ্ডঘোষ (Khandaghosh) থানার তোড়কনা গ্রামের বাসিন্দা। হাসপাতাল থেকে ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যা (suicide) করেছেন তাঁরই ছোট ছেলে অশোক রুইদাস (২২)। ইংরেজি অনার্সের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র অশোকের আকস্মিক মৃত্যুর ঘটনা জানতে পেরে স্তম্ভিত পরিবার, পরিজন ও প্রতিবেশীরা।
মৃতের দাদা অলোক রুইদাস বলেন, ‘বাবা সম্প্রতি ব্রেন স্ট্রোকে আক্রান্ত হয়। চিকিৎসার জন্য প্রথম বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল বাবাকে ভর্তি করি। পরে একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। কিন্তু বাবা সুস্থ হওয়ার পরিবর্তে ক্রমশ শারীরিক অবস্থার অবনতি হচ্ছিল। সপ্তাহ খানেক আগে আমরা বাড়িতে আলোচনা করে বাবাকে দুর্গাপুরের একটি বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে যাই। সেখানে চিকিৎসা চলাকালীন সোমবার বিকাল ৫টা নাগাদ বাবার মৃত্যু হয়।’ অলোক আরও বলেন, ‘বাবার মৃত্যু সংবাদ ভাই অশোকই আমাকে জানায়। মা ভেঙে পড়বে বলে মাকে বাবার মৃত্যু সংবাদ তখনও জানানো হয়নি। এরই মধ্যে রাত সাড়ে ৯টা নাগাদ ভাই হঠাৎই হাসপাতাল থেকে বেরিয়ে যায়। বেশ কিছু সময় পর ভাই আমার ফোনে মেসেজ পাঠিয়ে লেখে, বাবার মৃত্যুর জন্য আমিই দায়ী। এই মেসেজ দেখেই আমরা ওর খোঁজ শুরু করি। প্রায় ৩০ মিনিট পর ভাই হাসপাতালের পাঁচতলা থেকে ঝাঁপ দেয়। দ্রুত হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। কিন্তু চিকিৎসক মৃত বলে ঘোষণা করেন।’
পরিবার সূত্রে জানা গিয়েছে, ইংরেজি অনার্স নিয়ে পড়াশোনা শেষ করে বেঙ্গালুরুতে পড়তে যাওয়ার কথা ছিল অশোকের। কিন্তু সেই স্বপ্ন আর পূরণ হল না বলে আক্ষেপ করেন অলোক।
খণ্ডঘোষ (Khandaghosh) পঞ্চায়েত সমিতির সহসভাপতি শ্যামল দত্ত বলেন, ‘সোমবার বিকেলে বাবা মারা যাওয়ার পর রাতে হাসপাতালের পাঁচতলা বিল্ডিং থেকে ঝাঁপ দিয়ে ছোট ছেলে অশোক রুইদাস আত্মঘাতী (suicide) হন। দুর্গাপুরের বিধাননগর থানার পুলিশ মৃতদেহ উদ্ধার করে নিয়ে যায়। মঙ্গলবার ময়নাতদন্তের পর বাবা-ছেলের মৃতদেহ এক সঙ্গে তোড়কনার বাড়িতে নিয়ে আসা হয়।’

Theonlooker24x7.com সব খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে লাইক করুন ফেসবুক পেজ  ফলো করুন টুইটার

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

scroll to top