১২ ধারায় মামলা শুভেন্দুর বিরুদ্ধে, রয়েছে অফিশিয়াল সিক্রেটস অ্যাক্টও

IMG-20210605-WA0160.jpg

কলকাতা: ফোনে আড়ি পাতা নিয়ে পেগ্যাসাস-বিতর্কে উত্তাল দেশ। এরই মধ্যে আর এক আড়ি পাতা কাণ্ডের অবতারণা। সেটি অবশ্য একেবারেই পশ্চিমবঙ্গ-কেন্দ্রিক। কিন্তু তাতে জলঘোলা কিছু কম হচ্ছে না।
বিজেপি বিধায়ক তথা বিধানসভায় বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারীর বিরুদ্ধে এই অভিযোগে মামলা দায়ের করেছে পুলিশ। কারণ সম্প্রতি তিনি দাবি করেন, অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের অফিস থেকে পুলিশ অফিসারদের কাছে ফোন কল যায় বলে তাঁর কাছে খবর আছে। অভিষেক তৃণমূল সাংসদ এবং মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ভাইপো
পূর্ব মেদিনীপুরে এক র‍্যালিতে সোমবার এক পুলিশকর্তাকে রীতিমতো হুঁশিয়ারি দেন শুভেন্দু। ওই পুলিশ আধিকারিককে তিনি বলেন, ‘ভাইপোর অফিস থেকে আপনার কাছে যে ফোন আসে তার নম্বর ও রেকর্ড আমার কাছে আছে।’ এরপরে অভিষেকের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘কেউ আপনাকে বাঁচাতে পারবে না।’
সোমবার তমলুকে জনসভা করেন শুভেন্দু। তার ২৪ ঘণ্টার মধ্যে শুভেন্দুর বিরুদ্ধে স্বতঃপ্রণোদিত মামলা দায়ের করেছে পুলিশ। ১২টি ধারায় মামলা হয়েছে তাঁর বিরুদ্ধে। করোনা পর্বে সরকারি নির্দেশ লঙ্ঘন করে ৫০ জনের বেশি জমায়েতে সভা করা হয়েছে বলে দাবি করছে পুলিশ। শুভেন্দু এবং আরও পাঁচজন বিজেপি বিধায়ক-সহ ১৫ জনের নামে এবং অজ্ঞাতপরিচয় দু’শো জনের বিরুদ্ধে বিপর্যয় মোকাবিলা আইনে মামলা করেছে তমলুক থানার পুলিশ।
সেই র‍্যালিতেই রীতিমতো হুঁশিয়ারি দিতে থাকেন শুভেন্দু। পুলিশ আধিকারিকদের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন। সেই সঙ্গে ভাষণের শেষ পর্যায়ে বলেন, ‘আপনার হাতে রাজ্য সরকার থাকলে আমার হাতে কেন্দ্রীয় সরকার রয়েছে। সিবিআই শীঘ্রই আইও, আইসি, ওসি-দের ভূমিকা খতিয়ে দেখতে শুরু করবে। তখন বুঝবেন। কোনও পিসি আপনাকে বাঁচাতে পারবে না।’
সম্প্রতি পেগ্যাসাসে আড়ি পাতার তালিকায় যাঁদের নাম পাওয়া গিয়েছে, তাঁদের মধ্যে অভিষেকও রয়েছেন। আছেন ভোটকুশলী প্রশান্ত কিশোর বা পিকে, রাহুল গান্ধীরাও। তৃণমূলের মুখপাত্র কুণাল ঘোষ বলেন, ‘শুভেন্দুর বক্তব্যেই স্পষ্ট যে কেন্দ্র এ রাজ্যের ফোন ট্যাপ করছে।’
বিরোধী দলনেতার বিরুদ্ধে অফিশিয়াল সিক্রেটস অ্যাক্টেও মামলা করা হয়েছে। বেআইনি ভাবে গোপন সরকারি কোড, পাসওয়ার্ড, নতি ইত্যাদি রাখার অভিযোগে এই ধারা দেওয়া হয়েছে তাঁর বিরুদ্ধে।
যদিও কোনও কিছুকেই বিশেষ পাত্তা দেননি শুভেন্দু। একদিকে তাঁর দাবি, পেট্রল-ডিজেলের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে বহু তৃণমূল সমর্থকের জমায়েত করে আন্দোলনের ছবি তাঁর কাছে আছে। অন্যদিকে শুভেন্দু বলেন, ‘পুলিশের কাজই তো মামলা করা।’ তবে কুণালের বক্তব্য সম্পর্কে কিছু বলতে চাননি তিনি। কেবল বলেন, ‘উনি সাড়ে তিন বছর জেনে ছিলেন। ওঁর বক্তব্যের প্রেক্ষিতে কিছু বলব না।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

scroll to top