দিঘার সৌন্দর্যায়নে বিশেষজ্ঞ কমিটি দিদির, হাজার কোটি সাহায্য ঘোষণা মোদীর

MAMATA-AT-DIGHA.jpg

কলকাতা: ঘূর্ণিঝড় ইয়াসে লন্ডভন্ড দিঘার মেরিন ড্রাইভ পুনর্গঠনে বিশেষজ্ঞ কমিটি গড়লেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কমিটির নেতৃত্বে থাকবেন মুখ্যসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়। পাশাপাশি দিঘা উন্নয়ন পর্ষদের নতুন চেয়ারম্যানও করা হয়েছে আলাপনকে।
আজ, শুক্রবার প্রথমে হিঙ্গলগঞ্জ ও সাগরে পরিদর্শন সারেন মমতা। সেখান থেকে উড়ে যান কলাইকুণ্ডায়। অন্যদিকে ইয়াসে ওডিশার পরিস্থিতি খতিয়ে দেখে দুপুর দুটোয় কলাইকুণ্ডা পৌঁছন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। তার মিনিট ১৫ পরে যান মমতা। আড়াইটে নাগাদ প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করে ইয়াসের জেরে ক্ষতির খতিয়ান মোদীকে জানান মমতা। মোদীর ডাকা রিভিউ বৈঠকে যোগ না দিয়ে প্রশাসনিক বৈঠক থাকায় দিঘা রওনা দেন মুখ্যমন্ত্রী। সওয়া তিনটে নাগাদ পৌঁছন দিঘায়।
প্রশাসনিক বৈঠকে বিডিও-রা জানান, ঝড়ে সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হয়েছে খেজুরি ২, নন্দীগ্রাম, কাঁথি ১, কাঁথি ২, কাঁথি ৩, রামনগর ১ এবং রামনগর ২-এর। দিঘা সৈকত উন্নয়নের জন্য ১০ হাজার কোটি এবং সামগ্রিক ভাবে প্রধানমন্ত্রীর কাছে ২০ হাজার কোটি টাকার আর্থিক প্যাকেজের দাবি জানান মমতা। তবে সেই টাকা পাওয়া নিয়ে প্রশাসনিক বৈঠকে সংশয় প্রকাশ করেন। এ দিন বিকেলে মোদী জানান, ইয়াসের ক্ষতি মোকাবিলায় বাংলাকে হাজার কোটি টাকা সাহায্য করা হবে। প্রশাসনিক বৈঠকের পরে সমুদ্র সৈকত ঘুরে দেখেন মমতা। আজ রাতে দিঘাতেই থাকার কথা তাঁর।
এ দিকে, ঝড় মোকাবিলায় করোনা নিয়ে কাজ করছেন পূর্ব মেদিনীপুরের জেলাশাসক পূর্ণেন্দু মাঝি। এ দিনের বৈঠকে তাঁর প্রশংসা করে মমতা জিজ্ঞাসা করেন, ‘পূর্ণেন্দু, তুমি শরীরের যত্ন নিচ্ছ? অসুস্থ অবস্থাতেও ঘর থেকে কাজ করছ। নিজেকে কিন্তু অবহেলা করো না। তোমার টিমই কাজ করবে।’
পাশাপাশি, উম্পুনের ক্ষতিপূরণ নিয়ে তৃণমূলের বিরুদ্ধে গুচ্ছ অভিযোগ ওঠায় ইয়াসের ক্ষেত্রে প্রথম থেকেই সতর্ক মমতা। তাই ক্ষতি ঠিক কতখানি বুঝে তবেই সরকারি সাহায্য দেওয়া হবে বলে আজও স্পষ্ট জানান মুখ্যমন্ত্রী। অর্থের অপব্যবহার যাতে কোনও ভাবেই না-হয়, সে দিকে নজর রাখার কথাও বলেন।
মমতার কথায়, ‘আগামী ৩ থেকে ১৮ জুন দুয়ারে ত্রাণ কর্মসূচি চলবে। সেখানে নিজেদের ক্ষয়ক্ষতির হিসাব দিয়ে আবেদন জানানো যাবে। এর পর ১৯ থেকে ৩০ জুন পর্যন্ত ত্রাণের আবেদন খতিয়ে দেখবেন প্রশাসনিক কর্তারা। সমীক্ষা করে দেখা হবে আবেদন যথাযথ কি না। টাকা দেওয়া হবে কি না, সে ব্যাপারে সিদ্ধান্ত হবে সমীক্ষার পরে।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

scroll to top