ভোটে দলের জয়জয়কার হলেও ‘ডিমোশন’ হল জামালপুর ব্লক তৃণমূল কার্যালয়ের

Jamalpur-TMC-party-office.jpg

পার্টি অফিসের দেওয়াল থেকে মুছে দেওয়া হয়েছে ‘ব্লক’ শব্দটি

প্রদীপ চট্টোপাধ্যায়, বর্ধমান
বিধানসভা নির্বাচনে বাংলায় অভাবনীয় জয় পেয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস। তৃতীয় বারের জন্য বাংলায় সরকার গঠন করার পর এখন তৃণমূল কংগ্রেসের লক্ষ্য ‘ত্রিপুরা’ জয়। এমন সাফল্যের মাঝেও ‘ডিমোশন’ হল তৃণমূলের (TMC) পার্টি অফিসের। শুধু ‘ডিমোশন’-ই নয়, বদল ঘটেছে পার্টি অফিসের নেতৃত্বেরও। বিধানসভা ভোটের আগে যা ছিল পূর্ব বর্ধমানের জামালপুর (Jamalpur) ‘ব্লক’ তৃণমূল কংগ্রেস কার্যালয়, ভোটের পর তার ‘ডিমোশন’ হয়ে হয়েছে জামালপুর (Jamalpur) ‘২’ তৃণমূল কংগ্রেস কার্যালয়। অর্থাৎ জামালপুর ২ অঞ্চল তৃণমূল কংগ্রেস কার্যালয়। সৌজন্যে দলের দুই গোষ্ঠীর কোন্দল। ব্লক থেকে অঞ্চল কার্যালয় হয়ে যাওয়াকে নিজেদের মধ্যে আলোচনায় ‘ডিমোশন’ই বলছেন দলেরই একাংশ।
বাম আমলে জামালপুরে (Jamalpur) তৃণমূল কংগ্রেসের ব্লক পার্টি অফিস বলে কিছু তেমন ছিল না। বর্তমান ব্লক তৃণমূলের সভাপতি মেহেমুদ খান পুলমাথা সংলগ্ন এলাকায় তাঁর বস্ত্র প্রতিষ্ঠানে বসেই তখন দলের কাজকর্ম চালাতেন। ২০১১ সালে বিধানসভা নির্বাচনে রাজ্যে পালাবদলের সময় জামালপুর বিধানসভাতেও ঘাসফুল ফোটে। বিধায়ক নির্বাচিত হন উজ্জ্বল প্রামাণিক। এর পর ২০১৪ সালে জামালপুর (Jamalpur) বাস স্ট্যান্ড লাগোয়া একটি জায়গায় গড়ে তোলা হয় তৃণমূলের (TMC) দোতলা একটি পার্টি অফিস। তখন থেকেই ওই পার্টি অফিসের দেওয়ালে বড় বড় অক্ষরে লেখা ছিল ‘জামালপুর ব্লক তৃণমূল কংগ্রেস কার্যালয়’। বিধায়ক উজ্জ্বল প্রামাণিক-সহ ব্লক তৃণমূলের তৎকালীন সভাপতি অরবিন্দ ভট্টাচার্য ও বিধায়ক ঘনিষ্ঠ অন্য তৃণমূলের নেতা-কর্মীরা সেখানে বসেই দলের কাজকর্ম পরিচালনা করতেন। অন্যদিকে একই সময়কালের মধ্যে পুলমাথা সংলগ্ন এলাকায় দলের নামে থাকা জমিতে পার্টি অফিস গড়ে ফেলেন তৃণমূল নেতা মেহেমুদ খান। সেখানে বসেই আজও তিনি দলের কাজকর্ম চালিয়ে যাচ্ছেন।
এদিকে উজ্জ্বল বিধায়ক হওয়ার কয়েক বছর পর থেকেই তাঁর সঙ্গে মেহেমুদ খানের সম্পর্কে টানাপড়েন শুরু হয়। সময় গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে দ্বন্দ্বও বাড়ে। যার পরিণাম ২০১৬-র নির্বাচনে জামালপুর বিধানসভা আসনে লড়ে পরাজিত হন উজ্জ্বল। জয়ী হন বাম প্রার্থী সমর হাজরা। এর পর ২০২১ বিধানসভা নির্বাচনের কয়েকমাস আগে দল অরবিন্দ ভট্টাচার্যকে সরিয়ে জামালপুরের বাসিন্দা জেলা তৃণমূল যুব কংগ্রেসের কার্যকরী সভাপতি শ্রীমন্ত রায়কে ব্লক তৃণমূল কংগ্রেসের (TMC) সভাপতি করে। দল এ বার উজ্জ্বল প্রামাণিককে আর জামালপুর বিধানসভার প্রার্থী করেনি। পরিবর্তে গলসির বিধায়ক অলোক মাঝিকে জামালপুর বিধানসভার প্রার্থী করা হয়। তার পরেই শ্রীমন্ত রায়কে ব্লক তৃণমূলের সভাপতির দায়িত্ব থেকে সরিয়ে দিয়ে মেহেমুদ খানকে সভাপতি করে দেয় দল। মেহেমুদ খানের সাংগঠনিক শক্তিতে ভর করে অলোক মাঝি বিধায়ক নির্বাচিত হন। এর কিছু দিন পরেই ‘ডিমোশন’ হয়ে যায় উজ্জ্বল প্রামাণিকের ‘জামালপুর ব্লক তৃণমূল কংগ্রেস কার্যালয়ের’। ওই কার্যালয়ের দেওয়ালে লেখা ‘ব্লক’ শব্দটি মুছে দিয়ে সেখানে ‘২’ লিখে দেওয়া হয়েছে। অর্থাৎ ব্লক তৃণমূল কংগ্রেস কার্যালয় এখন জামালপুর ২ অঞ্চল তৃণমূলে কার্যালয়ের রূপ পেয়েছে। পাশাপাশি বদল ঘটেছে ওই কার্যালয়ের নেতৃত্বের।
এ প্রসঙ্গে পূর্বতন ব্লক সভাপতি শ্রীমন্ত রায় কারও নাম মুখে না এনে বলেন, ‘ভোটের ফল বের হওয়ার কয়েক দিন পর দলেরই একাংশ ওই পার্টি অফিসের দখল নিয়েছে।’ অন্যদিকে জামালপুরের শুড়েকালনার বাসিন্দা জেলা তৃণমূল নেতা প্রদীপ পাল এই ঘটনার জন্য সরাসরি ব্লক তৃণমূলের বর্তমান সভাপতি মেহেমুদ খান ও যুব সভাপতি ভূতনাথ মালিককে দায়ী করেছেন। তাঁর অভিযোগ, ‘বিধানসভা ভোটের ফল ঘোষণার পর মেহেমুদ খান ও ভূতনাথ মালিক দলবল নিয়ে জামালপুর ব্লক তৃণমূল কংগ্রেস কার্যালয়ের দখল নেয়। তার পর দেওয়ালের লেখা ব্লক শব্দটি মুছে দিয়ে জামালপুর ২ অঞ্চল অফিসে পরিণত করে।’ তিনি আরও বলেন, ‘পুরো বিষয়টি লিখে মুখ্যমন্ত্রীর পাশাপাশি জেলা ও রাজ্য তৃণমূলের সর্বোচ্চ নেতৃত্বকে জানিয়েছি। দল এ বিষয়ে যা ব্যবস্থা নেওয়ার নেবে।’ এ সবের মাঝে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক নেতা বলেন, ‘দলের এমন সুসময়ে এমনটা অনভিপ্রেত। পার্টি অফিসের ডিমোশন হয়েছে বলে লোকে আলোচনা করছে। বরং নেতৃত্বে যে-ই থাকুন না কেন ওই কার্যালয়টি ব্লক পার্টি অফিস হিসেবে থাকলেই ভালো হত।’
যদিও জামালপুর ব্লক তৃণমূল সভাপতি মেহেমুদ খান ও যুব সভাপতি ভূতনাথ মালিক দাবি করেছেন, ‘উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ভাবে আমাদের নামে মিথ্যা অভিযোগ আনা হচ্ছে। ওই পার্টি অফিসে আমরা যাই না। ওখানে কী হচ্ছে সেই বিষয়ে ওয়াকিবহালও নই।’
তৃণমূল কংগ্রেসের রাজ্যের মুখপত্র দেবু টুডু বলেন, ‘কী ঘটনা ঘটেছে তা জানা নেই। খোঁজ খবর নিয়ে জেনে তার পর মন্তব্য করব।’

Theonlooker24x7.com সব খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে লাইক করুন ফেসবুক পেজ  ফলো করুন টুইটার

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top