পর্যটনের জেরে কি বাড়ছে সংক্রমণ? প্রশ্ন পশ্চিমবঙ্গের এই জেলাগুলির কোভিড-চিত্র ঘিরে

West-Bengal-Tourism.jpg

প্রতীকী চিত্র

কলকাতা: পর্যটনের (Tourism) সঙ্গে তাল মিলিয়ে কি পশ্চিমবঙ্গের (West Bengal) কোভিড গ্রাফ বাড়ছে? এই প্রশ্ন উঠছে কারণ রাজ্যের যে সব জেলায় পর্যটন স্থল রয়েছে, সেখানে করোনা সংক্রমণের হার ঊর্ধ্বমুখী। পশ্চিমবঙ্গের দৈনিক সংক্রমণ ৬০০ থেকে ৮০০-র মধ্যে ঘোরাফেরা করছে। কিন্তু চিন্তা বাড়াচ্ছে দার্জিলিং থেকে পূর্ব মেদিনীপুরের মতো জেলাগুলি।
কারণ পশ্চিমবঙ্গের (West Bengal) মধ্যে এই সব জেলায় কোভিড আক্রান্তের হার অন্যান্য এলাকার তুলনায় বেশি। তার মধ্যে দার্জিলিং, পূর্ব মেদিনীপুর অন্যতম। ‘পাহাড়ের রানি’ দার্জিলিংয়ের আকর্ষণ পর্যটকদের কাছে সব সময়ই তুঙ্গে। তেমনই পূর্ব মেদিনীপুরের দিঘা, মন্দারমণিতে দলে দলে বেড়াতে যান মানুষ।
একটি সংবাদমাধ্যমে রাজ্যের এক আধিকারিক বলেন, ‘দার্জিলিং, পূর্ব মেদিনীপুরের মতো জেলায় সংক্রমণের হার ঊর্ধ্বমুখী। সেটা পর্যটকদের (Tourism) জন্য হতে পারে। লোকাল ট্রেন বন্ধ থাকলেও দূরপাল্লার বাস ও ট্রেন তো চলছে।’
কলকাতা ও সংলগ্ন উত্তর এবং দক্ষিণ ২৪ পরগনা, হাওড়া, হুগলিতে করোনার সংক্রমণ এমনিতেই বেশি। অন্যান্য জেলার তুলনায় বরাবরই করোনা আক্রান্তের নিরিখে এগিয়ে রয়েছে এই জেলাগুলি।
পুরুলিয়া, ঝাড়গ্রাম, মুর্শিদাবাদ, উত্তর দিনাজপুর, দক্ষিণ দিনাজপুরে বৃহস্পতিবার দৈনিক সংক্রমণ ১৫-র বেশি নয়। সে জায়গায় দার্জিলিং ও পূর্ব মেদিনীপুরে সংক্রমণ যথাক্রমে ৭৪ ও ৪৬। কলকাতা, উত্তর ২৪ পরগনা ও দক্ষিণ ২৪ পরগনায় দৈনিক সংক্রমণ যথাক্রমে ৭৭, ৮৮ এবং ৬৮।
আর এক আধিকারিকের কথায়, ‘দার্জিলিংয়ের মধ্যে রয়েছে শিলিগুড়ি। রাজ্যের অন্যতম ব্যস্ত এলাকা ও বাণিজ্য অঞ্চল। ঊর্ধ্বমুখী সংক্রমণের পিছনে সেটাও দায়ী হতে পারে।’
রাজ্য সরকারের এক সিনিয়র আধিকারিক জানান, পর্যটকদের সংখ্যায় রাশ টানতে জেলা প্রশাসন ইতিমধ্যেই কঠোর পদক্ষেপ করেছে। পূর্ব মেদিনীপুর, দার্জিলিং, বীরভূম, দক্ষিণ ২৪ পরগনা-সহ একাধিক জায়গায় নেগেটিভ আরটি-পিসিআর টেস্ট বা টিকাকরণের সার্টিফিকেট বাদে কাউকে যেতে দেওয়া হচ্ছে না।
বৃহস্পতিবার রাজ্যে (West Bengal) নতুন করে ৭৪৭টি সংক্রমণের হদিস মিলেছে। করোনামুক্ত হয়েছেন ৭৭৩ জন। মৃত্যু হয়েছে ১০ জনের। সে দিনই নতুন করে বিধিনিষেধ ও আত্মশাসনের কথা ঘোষণা করা হয়েছে। দিল্লি থেকে টিকা আসছে না। তাই আগামী ৩০ অগস্ট পর্যন্ত লোকাল ট্রেন বন্ধ থাকবে বলে ঘোষণা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সাধারণ মানুষের কষ্ট হলেও নিরাপত্তার স্বার্থে এই সিদ্ধান্ত বলে জানান মুখ্যমন্ত্রী।
নাইট কার্ফু রাত ৯টার বদলে ১১টা থেকে জারি করা হয়েছে। থাকবে পরদিন ভোর ৫টা পর্যন্ত। এ ছাড়া শর্তসাপেক্ষে খুলছে সুইমিং পুল ও অডিটোরিয়াম।

Theonlooker24x7.com সব খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে লাইক করুন ফেসবুক পেজ  ফলো করুন টুইটার

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top