অবশেষে খুলল হানের আইফোন, নানা তথ্য পাওয়ার সম্ভাবনা

IMG-20210623-WA0005.jpg

মালদহ: মালদহ থেকে ধৃত চিনা চর হান জুনেইয়ের ফোন থেকে অবশেষে তথ্য পেতে সমর্থ হল রাজ্য পুলিশের স্পেশ্যাল টাস্ক ফোর্স (এসটিএফ, STF)। গ্রেপ্তার হওয়ার সময় হান জুনেইয়ের কাছ থেকে তিনটি ল্যাপটপ ও তিনটি মোবাইল উদ্ধার হয়। কিন্তু সেগুলি চিনের মান্দারিন ভাষায় পাসওয়ার্ড থাকায় সমস্যায় পড়েন তদন্তকারীরা। শেষমেশ হানের আইফোনের লক খোলা গিয়েছে। ফোন এবং ল্যাপটপ থেকে বেশ কিছু চাঞ্চল্যকর তথ্য মিলেছে বলে সূত্রের খবর। হান ভারতে কতটা জাল বিস্তার করেছিল সে সম্পর্কিত অনেক তথ্যই সামনে আসবে বলে মনে করা হচ্ছে।
প্রাথমিক ভাবে তদন্তকারীরা দেখছেন, চিন ছাড়াও ভারত ও কয়েকটি দেশের বহু নাগরিকের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রাখত হান। কিন্তু তার কারণ ভেবে পাওয়া যাচ্ছে না। পাশাপাশি এ দেশেরও বিভিন্ন রাজ্যের বহু বাসিন্দার নম্বর রয়েছে হানের আইফোনে।
বাংলাদেশ থেকে মালদহ সীমান্ত দিয়ে চোরাপথে ভারতে ঢুকতে গিয়ে ধরা পড়ে যায় হান। অনুপ্রবেশে হানকে এ দেশের কারা মদত দিয়েছিল, তা খতিয়ে দেখছেন তদন্তকারীরা।
একটি চিনা চক্রের অন্যতম সদস্য হিসাবে হানকে সন্দেহ করছেন গোয়েন্দারা। সেই চক্রেরই এক জন মাসকয়েক আগে ধরা পড়ে। উত্তরপ্রদেশ পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে জানুয়ারিতে। তদন্তে জানা গিয়েছে, চক্রের অন্যদের সঙ্গে ভুয়ো মেল আইডি-র মাধ্যমে যোগাযোগ রাখতেন হান। তবে তদন্তে ওই ধৃত চিনা নাগরিক একেবারেই সহযোগিতা করছেন না বলে অভিযোগ। তাঁদের বক্তব্য, প্রশ্ন এড়ানোর পাশাপাশি বিভ্রান্তিমূলক কথাও বলছেন হান।
পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, হান জুনেইয়ের কাছ থেকে উদ্ধার হওয়া তিনটি মোবাইলে মোট চারটি সিমকার্ড রয়েছে। সিমকার্ডগুলির মধ্যে একটি ভারত, একটি বাংলাদেশ ও দু’টি চিনের। প্রথম থেকেই এই ফোনগুলি ও ল্যাপটপের উপর নজর ছিল তদন্তকারীদের। কারণ এখানের থেকেই প্রচুর তথ্য বেরিয়ে আসতে পারে বলে মনে করা হচ্ছিল। কিন্তু অন্তরায় হয়ে দাঁড়িয়েছিল মান্দারিন ভাষায় পাসওয়ার্ড। বহুবার পাসওয়ার্ড ক্র্যাক করার চেষ্টা করেও হয়নি। শেষমেশ আইফোনের পাসওয়ার্ড খুলতে সমর্থ হয়েছেন তদন্তকারীরা। ভারতে কতটা জাল বিস্তার করেছিল হান জুনেই, তা এই ফোন থেকে খতিয়ে দেখছেন গোয়েন্দারা। জানা গিয়েছে, হায়দরাবাদের একটি সংস্থার মধ্যে জালিয়াতি করত এই চিনা চর। ইতিমধ্যে সেখান থেকে হানের এক সঙ্গী গ্রেপ্তারও হয়েছে। তদন্তে উঠে এসেছে হানের আর সঙ্গীর নাম। মুম্বইয়ের বাসিন্দা আব্দুল রেজ্জাক নামে ওই সঙ্গী পালিয়ে বেড়াচ্ছে বলে জানতে পেরেছেন গোয়েন্দারা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

scroll to top