সম্পর্কে টানাপড়েন, যুবকে খুন করে পুঁতে দেওয়ার অভিযোগে ধৃত দম্পতি

murder-kalna.jpg

মাটি খুঁড়ে উদ্ধার করা হচ্ছে দেহ

প্রদীপ চট্টোপাধ্যায়, বর্ধমান: বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ায় এক যুবকে খুন করে মাটিতে পুঁতে দেওয়ার অভিযোগে গ্রেপ্তার দম্পতি। তাঁদের জেরা করেই মাটি খুঁড়ে উদ্ধার হয় মৃতদেহ। মৃতের নাম ফিলিমান হাঁসদা। বাড়ি পূর্ব বর্ধমান জেলার মন্তেশ্বরের ধামাচিয়ার শিয়ালমারা এলাকায়। বুধবার বিকেলে পুলিশ বিনপুরের অদূরের ক্যানালপাড় থেকে মাটি খুঁড়ে তাঁর দেহ উদ্ধার করে। মূলত সম্পর্কে টানাপড়েনের জেরেই খুন বলে অনুমান পুলিশের। বিস্তারিত জানতে ধৃত সাইমন হাঁসদা ওরফে শ্যামল ও তাঁর স্ত্রী আরতি মুর্মুকে জেরা করছে পুলিশ।
সপ্তাহ খানেক আগে বিনপুরে কাজে গিয়ে নিখোঁজ হয়ে যান ফিলিমান। পরিবারের লোকজন নানা ভাবে খোঁজ চালিয়ে জানতে পারেন, মন্তেশ্বরের বিনপুরের বাসিন্দা সাইমন ও তাঁর স্ত্রী আরতির সঙ্গে ফিলিমানের যোগাযোগ ছিল। বেশ কিছু সূত্র থেকে ওই দম্পতির প্রতি সন্দেহ তৈরি হয় পরিবারের লোকজনের। তাঁরা বিষয়টি পুলিশকে জানান। পাশাপাশি দম্পতির বিরুদ্ধে মন্তেশ্বর থানায় অভিযোগও দায়ের করেন তাঁরা। তার ভিত্তিতে তদন্তে নেমে পুলিশ দম্পতিকে জেরা শুরু করে। টানা জেরার মুখে ভেঙে পড়ে খুন করে দেহ পুঁতে রাখার কথা স্বীকার করেন ওই দম্পতি। এর পর তাঁদের দেখানো জায়গা থেকেই এদিন দেহ উদ্ধার করে পুলিশ। তবে যুবকে খুনের কারণ এখনও পরিষ্কার করে জানাতে পারেনি পুলিশ। প্রাথমিক ভাবে অনুমান, অবৈধ সম্পর্কের জেরেই এই খুনের ঘটনা।
জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ধ্রুব দাস জানিয়েছেন, ওই দম্পতিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। সুনির্দিষ্ট ধারায় মামলা রুজু করে ধৃতদের বৃহস্পতিবার আদালতে তোলা হবে। ওই দিনই ময়নাতদন্তে পাঠানো হবে মৃতদেহটি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top