সাবালকের ব্যর্থতা দেখতে নাবালককে আসতে হয়, তাজপুরে শুভেন্দুর নাম না করে কটাক্ষ অভিষেকের

abhishek-banerjee.jpg

মেদিনীপুর: তাঁকে ‘নাবালক’ বলে কটাক্ষ করেছিলেন বিধানসভায় বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী। আজ, বৃহস্পতিবার শুভেন্দুর ‘খাসতালুক’ তাজপুর লাগোয়া এলাকা পরিদর্শনে গিয়ে সেই কটাক্ষের জবাব দিলেন তৃণমূল সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। বলেন, ‘সাবালকের ব্যর্থতা দেখতে নাবালককে আসতে হয়। সাবালক শুধু বড়-বড় ভাষণ দিচ্ছেন। উনি যখন সাবালক, তো সাবালকত্বের পরিচয় দিন। সাবালককে অন ক্যামেরা টাকা নিতে দেখা গিয়েছে। নাবালককে কিন্তু দেখা যায়নি।’ প্রসঙ্গত, নারদ ভিডিয়োয় শুভেন্দুকেও টাকা নিতে দেখা যায়। অভিষেক সেই প্রসঙ্গই উল্লেখ করেছেন বলে মনে করা হচ্ছে।
ঘূর্ণিঝড় ‘ইয়াস’ পরবর্তী পরিস্থিতি দেখতে দুই ২৪ পরগনার পর পূর্ব মেদিনীপুরে পরিদর্শনে যান অভিষেক। স্থানীয় বাসিন্দাদের নানা অভাব অভিযোগ শোনেন তিনি। তাঁদের পাশে থাকার আশ্বাস দিয়ে বাঁধ নিয়ে ক্ষোভও জানান।
বুধবার উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনার বিস্তীর্ণ এলাকা পরিদর্শনে গিয়েছিলেন ডায়মন্ড হারবারের সাংসদ অভিষেক। এ দিন পূর্ব মেদিনীপুরের মন্দারমণি, তাজপুর লাগোয়া এলাকা, রামনগর, কাঁথির বিভিন্ন জায়গায় যান তিনি। সেখানে বেহাল বাঁধগুলি দেখার সময় বাঁধ নির্মাণকারী ঠিকা সংস্থাগুলির বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দেন স্থানীয় বাসিন্দারা। তাঁদের বক্তব্য, ‘আগামী ১২ তারিখ ফের ভরা কোটাল। এর মধ্যে বাঁধ মেরামতি না হলে ফের জল ঢুকবে গ্রামে। তাই দ্রুত তা সংস্কার কার হোক।’
বাঁধ পরিদর্শনের সময় সঙ্গে ছিলেন মৎস্যমন্ত্রী অখিল গিরি। বাঁধ ভেঙে পড়া নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে অভিষেক কারও নাম না করে বলেন, ‘মানুষের অর্থ গ্রাস করে নিজেদের জীবন সমৃদ্ধ করেছে কেউ কেউ। তাঁদের একজনকেও রেয়াত করা হবে না। ইতিমধ্যে মুখ্যমন্ত্রী এ বিষয় তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন।’
অভিষেক জানান, আগামী সপ্তাহ থেকে ক্ষতিগ্রস্তদের ব্যাঙ্কে সাহায্য ঢুকতে শুরু করবে। সকলের টাকা পেতে একটু সময় লাগবে। কাঁথির আশ্রয় শিবিরগুলিও ঘুরে দেখেন সাংসদ। শিশুদের বিশেষ দেখভালের নির্দেশও দেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

scroll to top